টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ: ভারত দলে বুমরার বদলি কে?

পিঠের চোটের কারণে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শেষ যশপ্রীত বুমরার। বুমরা চোটে পড়ার পর থেকেই ভারতের ক্রিকেটে আলোচনা চলছে, কে হবেন বুমরার বদলি? সে জন্য ভারতের কোচ রাহুল দ্রাবিড়ের তাড়াহুড়া না করলেও চলছে। ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত আইসিসির ইভেন্ট টেকনিক্যাল কমিটির অনুমোদন ছাড়াই বদলানো যাবে বিশ্বকাপের দল।

বুমরার বিকল্প হিসেবে রিজার্ভ দলে থাকা দুই পেসার মোহাম্মদ শামি ও দীপক চাহারের মধ্য থেকে কাউকে বেছে নিতে পারে ভারতের টিম ম্যানেজমেন্ট। এই দুই পেসারের মধ্যে এগিয়ে আছেন কে?

ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ শেষে অধিনায়ক রোহিত শর্মা জানিয়েছেন, অস্ট্রেলিয়ায় খেলার অভিজ্ঞতা আছে, এমন কাউকেই দল বেছে নেবে। অস্ট্রেলিয়ায় বেশ কয়েকবার সফর করেছেন মোহাম্মদ শামি। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে তাদের বিপক্ষে দুটি টেস্ট সিরিজজয়ী ভারত দলের সদস্য ছিলেন এই পেসার। ছিলেন অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে হওয়া ২০১৫ বিশ্বকাপে দলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য।

যদিও অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে শামি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন মাত্র একটি। অন্যদিকে চাহার অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে খেলেছেন মাত্র তিনটি টোয়েন্টি। অন্য কোনো সংস্করণে স্মিথদের দেশে খেলা হয়নি তাঁর। তাই অভিজ্ঞতা বিবেচনায় অনেকটা এগিয়েই আছেন শামি।

তবে শামি গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর আর কোনো টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেননি। অস্ট্রেলিয়া সিরিজে দলে জায়গা পেলেও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজে খেলতে পারেননি। খেলা হয়নি দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজেও। বর্তমানে বেঙ্গালুরুতে ন্যাশনাল ক্রিকেট একাডেমিতে ফিটনেস নিয়ে কাজ করছেন এই পেসার।

তাই শামির ফিটনেস নিয়ে কিছুটা দুশ্চিন্তায় কোচ রাহুল দ্রাবিড়, ‘দেখা যাক, আমাদের হাতে ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত সময় আছে। শামি বিশ্বকাপের দলে রিজার্ভ খেলোয়াড় হিসেবে আছে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত ও সিরিজগুলো খেলতে পারেনি, খেলতে পারলে ওর জন্য খুবই ভালো হতো। বর্তমানে ও ন্যাশনাল ক্রিকেট একাডেমিতে ফিটনেস নিয়ে কাজ করছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ১৪-১৫ দিন পর ও কীভাবে সেরে ওঠে, সে রিপোর্ট আমাদের দেখতে হবে। ওর ফিটনেস দেখেই এরপর আমরা সিদ্ধান্ত নেব।’

ভারতের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে আছেন ভুবনেশ্বর কুমার, অর্শদীপ সিং, হার্শাল প্যাটেল; যাঁরা প্রত্যেকেই মিডিয়াম পেসার। দীপক চাহারও গতির চেয়ে সুইং দিয়েই ব্যাটসম্যানদের ভোগাতে পটু। সে ক্ষেত্রে শামি অনেকটাই ব্যতিক্রম। শামির সবচেয়ে বড় শক্তির জায়গা তাঁর গতি। দলে তাই পেস–বৈচিত্র্য আনার ক্ষেত্রে চাহারের চেয়ে এগিয়েই থাকবেন শামি।

তবে এক জায়গায় শামির চেয়ে ঢের এগিয়ে দীপক চাহার। ব্যাট হাতে লোয়ার অর্ডারে বাড়তি ভূমিকা রাখতে পারেন। দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টিতেও খেলেছেন ১৭ বলে ৩১ রানের ইনিংস। বর্তমানে ভারত যে অলআউট ক্রিকেট খেলছে, সেখানে কাজে লাগতে পারে চাহারের ব্যাটিং। তবে সবাইকে ছাপিয়ে রিজার্ভের বাইরে থেকে দলে জায়গা পেতে পারেন মোহাম্মদ সিরাজও।