লেখক:

সত্যজিত দে সাগর

দশম শ্রেণী

টি.এস.পি কমপ্লেক্স সেকেন্ডারি স্কুল


v  কোড কী ?

কোড হচ্ছে কিছু চিহ্ন বা উপাত্ত যা আমাদের কাছে কোন অর্থ বহন করে

অর্থাৎ যার দ্বারা আমরা অন্যজন কী বলছে তা বুঝি! কিন্তু আমরা সাধারনত

কোড বলতে বুঝি এমন ভাবে কিছু লিখা যা শুধু কিছু নির্দিষ্‌ট মানুষ বুঝতে পারে। আমরা সাধারনত

ভাষাকে কোড মনে করি না। কিন্তু ভাষা কী এক ধরনের কোড না?! কারন আমি যদি কোন English না জানা মানুষকে বলি what are you doing? তা হলে সেই

মানুষের কাছে তা একটি জটিল কোড! আর এক English gentle men কে প্রশ্ন করি  আপনি কী করছেন? তাহলে তার জন্য তাও একটি কোড! এই দিকথেকে আমরা অনেকেই কোড বলতে ভুল বুঝি। পাশাপাশি আমরা  অসংখ্য কোডের মধ্যে সর্বদা ডুবে আছি। কিন্তু এর বহুরূপী ব্যবহারের মধ্যে রয়েছে প্রকৃত মজা ও রহস্য !

v  কোডের সার্থকতা

একটি কোড তখনই প্রকৃত রুপে সার্থক হবে যখন তা একি সাথে হবে খুব সহজ ও খুব কঠিন !  বিষয়টা এরকম যে, একটি ভালো কোড যে ভাঙ্গতে পারে তার জন্য খুব সহজ। আবার যে পারেনা তার জন্য হবে খুবই কঠিন! যাতে আমি যাকে কথাগুলো বলতে চাচ্ছি সে ছাড়া আর কেউ পাঠ্যউদ্ধার করতে না পারে। পাশাপাশী এটাকে হতে হবে সঠিক যাতে সব ধরনের কথা প্রকাশ করা যায় এবং যার পাঠ্যউদ্ধার করতে ভুল হয় না। এটি অনেকটা নতুন ভাষা তৈরির মত! কিন্তু এ ভাষা থাকবে গোপন ! এর দ্বারা কোন বন্ধুর বুদ্ধি কতটুকু তা যাচাই করতে পারবে। এটি কাউকে ধাধা হিসেবেও ভাঙ্গতে দেয়া যায়কোড ভাঙ্গানও এক ধরনেরে বুদ্ধির ব্যায়াম । এর ফলে ভাবার পরিধি বাড়ে। একটি কোড বেশি বড় হয়া উচিত না। তা হলে তা ভাঙ্গতে বেশি কষ্ট হবে। আবার হাতে অবসর সময় থাকলে কোড দিয়ে রচনা লেখা যায়! এতে সময়ও যাবে আবার বন্ধু কে অবাক ও করে দেয় যাবে!

 

এটি শুধু খেলা নয় অনেক ক্ষেত্রেই এর গুরুত্ব অনেক। (যেমনঃ গোয়েন্দা বিভাগ) এমন কি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে উভয় পক্ষই শুধু কোড ভাঙ্গার জন্য অসংখ্য মানুষকে নিয়োগ করে ছিল! কারণ অপর পক্ষের কোড ভাঙ্গার পেছনে রয়েছিল বিজয়ের সম্ভাবনা!

 

তাছাড়াও একটা কোড দেখে একটু অদল-বদল করে আরেকটা কোড তৈরি করা যায় বলে নিজে নিজে কোড বানানোও সোজা! আর এতে তোমার দক্ষতা থাকলে তোমার কথা তুমি যাকে কথাটা বলতে চাও শুধু সেই বুঝবে। এতে গোপন কথা আদান প্রদান করাও সোজা!

 

v  কিছু কোডঃ

    [এখানে কিছু কোড দেয়া হল যে গুলো খুবই সহজ এবং স্কাউট ও রেড ক্রস(ক্রিসেন্ট) ব্যবহার করে। এগুলো একটু অদল বদল করে সহজেই নতুন কোড বানানো যায়! এর মধ্যে একটা আমার বানানো J]

 

 

Ø এখানে সবগুলা কোড ভাষা (language) এ মূল ভাষা (main language) হিসেবে English ব্যবহার করা হয়েছে! L কারন এটি international language এবং এ ভাষাতে মাত্র ২৬ টা হরফ আছে। যেখানে বাংলাতে আছে ৫০টি! উচ্চারনের জন্য বাংলা ভালো হলেও কোডের জন্য English সোজা! তবে চেষ্টা করলে বাংলাতে কোড বানানো যে অসম্ভব তাও নয়! J

 

১ > মোর্স কোড সম্পর্কে সবাই হয়ত শুনেছে! একে revolutionary code ও বলা হয়। কোড টা নিন্মরুপ-



২ > একটা অক্ষরকে তার উল্টা অক্ষর দ্বারা প্রকাশ করা। যেমনঃ C এর জায়গায় শেষের দিক থেকে ৩ নম্বর অক্ষর X ব্যবহার করা! এর তালিকা নিন্মে দেয়া হল-

A  a

Z  z

B  b

Y  y

C  c

X  x

D  d

W  w

E e

V  v

F  f

U  u

G  g

T  t 

H  h

S  s

I  i

R  r

J  j

Q  q

K  k

P  p

L  l

O  o

M  m

N  n

এই কোডের উদাহরণঃ HZTZI (means : SAGAR)

 

৩। এই কোডটাকে সাইফার কোডও বলা হয়। কোডটা নিন্মরুপঃ-


  

এই কোডে দেখা যাচ্ছে প্রত্যেক ঘরে ২টি শব্দ রয়েছে এবং ২য় টা তে একটা চিহ্ন রয়েছে। এখানে যে alphabet বসাবে তার ঘরের চিহ্ন বসবে আর alphabet টা ঘরের ২য় alphabet হলে ডট ও বসবে। মানে A = __ এবং 

Z =  .>

 

এভাবে আরও অনেক কোড আছে! বাস্তবিকেই কোড নিয়ে খেলা করা ও নতুন কোড তৈরির মজাই আলাদা !!!!!!!!!!!!!! ;) J